27.9 C
Chittagong
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪
প্রচ্ছদউপজেলাঅপহরণের ১৩ দিন পর কলেজ শিক্ষার্থী হৃদয়ের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার!

অপহরণের ১৩ দিন পর কলেজ শিক্ষার্থী হৃদয়ের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার!

  নিজস্ব প্রতিবেদক

অপহরণের ১৩ দিন পর কদলপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী শিবলী সাদিক হৃদয়ের (২০) ক্ষত-বিক্ষত ও খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে দুই অপহরণকারীকে। এক অভিযুক্তকে উত্তেজিত জনতা পিটিয়ে মেরে ফেলেছে বলে পুলিশের ভাষ্য।

১১ সেপ্টেম্বর, সোমবার সকালে রাউজানের কদলপুর-রাঙ্গুনিয়া সীমান্তবর্তী পাহাড়ি এলাকা থেকে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। গত ২৮ আগস্ট রাতে কদলপুরের একটি মুরগি খামার থেকে অপহরণের শিকার হন শিবলী সাদিক হৃদয়।

নিহত কলেজ শিক্ষার্থী হৃদয় উপজেলার ৮ নম্বর কদলপুর ইউনিয়নের পঞ্চপাড়ার গ্রামের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মো. শফিক ড্রাইভারের ছেলে। সে পড়াশোনার পাশাপাশি ওই মুরগির খামারে ম্যানেজার হিসেবে চাকরি করতেন। অপহরণের পর প্রথমে ১৫ লাখ পরে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা । পরিবারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয় মুক্তিপণের দুই লাখ টাকাও।

রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার অজয় দেবশীল বলেন, দুই অপহরণকারীকে আটক করা হয়। আজ হৃদয়ের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এক অভিযুক্তকে উত্তেজিত জনতা পিটিয়ে মেরে ফেলেছে।

উল্লেখ্য, হৃদয় যে মুরগির খামারে চাকরি করতেন সেখানে সবাই ছিলেন চাকমা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর। মুরগির খামারে চাকরি করা চাকমা যুবকদের দেখাশোনার দায়িত্বে ছিলেন তিনি। সেখানে দুই মাস আগে চাকরি করা চাকমা যুবকদের সঙ্গে হৃদয়ের ঝগড়া হয়। পরে মুরগির খামারের মালিকরা তাদের মিলমিশ করে দেয়। কিন্তু তার পরও গত মাসে তাকে অপহরণ করা হয়। অপহরণের দুই দিন পর তাদের বাড়িতে ফোন করা হয়। বলা হয়, ছেলেকে জীবিত পেতে হলে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। পরে আবার দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়।

সিএস

সর্বশেষ